শতাধিক আসনে এগিয়ে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রচারণা চলমান। ৭ জানুয়ারি ভোটের আনুষ্ঠানিকতাকে কেন্দ্র করে ৩০০ আসনের বিপরীতে শতাধিকে এগিয়ে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা।

নির্ভরযোগ্য গণমাধ্যমের প্রতিবেদন সূত্র বলছে, অন্তত ১১৮ আসনে আওয়ামী লীগের নৌকা জয়ের পথে তেমন বাধা নেই। কারণ, এর অধিকাংশ আসনেই নেই শক্তিশালী বিরোধী বা স্বতন্ত্র প্রার্থী। আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কয়েকজন শীর্ষ নেতা প্রদত্ত তথ্য এবং আসনভিত্তিক বিশ্লেষণে এমনটি জানা গেছে।

আওয়ামী লীগের কয়েকজন নীতিনির্ধারক নেতা গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ৭ জানুয়ারির নির্বাচনে দলের ১১৮ প্রার্থীর বিজয় প্রায় নিশ্চিত। এসব আসনে আওয়ামী লীগের নিরাপদ আসনের মধ্যে রয়েছে– পঞ্চগড়-২, ঠাকুরগাঁও-১, দিনাজপুর-২, দিনাজপুর-৬, নীলফামারী-১, রংপুর-৪, রংপুর-৬, জয়পুরহাট-১, জয়পুরহাট-২, বগুড়া-৫, বগুড়া-৭, রাজশাহী-৩, রাজশাহী-৪, নাটোর-২, সিরাজগঞ্জ-১, সিরাজগঞ্জ-২, সিরাজগঞ্জ-৪, সিরাজগঞ্জ-৬, পাবনা-২, পাবনা-৪, পাবনা-৫, যশোর-২, যশোর-৪, মাগুরা-১, মাগুরা-২, নড়াইল-১, নড়াইল-২, বাগেরহাট-১, বাগেরহাট-২, বাগেরহাট-৪, খুলনা-১, খুলনা-২, খুলনা-৩, খুলনা-৬, সাতক্ষীরা-৩, বরগুনা-২, পটুয়াখালী-২, ভোলা-১, ভোলা-২, ভোলা-৩, ভোলা-৪, বরিশাল-১, বরিশাল-৫, ঝালকাঠি-১, ঝালকাঠি-২, টাঙ্গাইল-১, টাঙ্গাইল-৬, টাঙ্গাইল-৭, জামালপুর-১, জামালপুর-৩, শেরপুর-২, নেত্রকোনা-১, নেত্রকোনা-৪, নেত্রকোনা-৫, কিশোরগঞ্জ-৪, কিশোরগঞ্জ-৬, মানিকগঞ্জ-৩, মুন্সীগঞ্জ-২, ঢাকা-৩, ঢাকা-৬, ঢাকা-৭, ঢাকা-৮, ঢাকা-৯, ঢাকা-১০, ঢাকা-১১, ঢাকা-১২, ঢাকা-১৩, ঢাকা-১৫, ঢাকা-১৬, ঢাকা-১৭, গাজীপুর-৪, নরসিংদী-২, নরসিংদী-৫, নারায়ণগঞ্জ-২, নারায়ণগঞ্জ-৪, গোপালগঞ্জ-২,গোপালগঞ্জ-৩, মাদারীপুর-১, মাদারীপুর-২, শরীয়তপুর-১, শরীয়তপুর-৩, সুনামগঞ্জ-৩, সুনামগঞ্জ-৫, সিলেট-১, সিলেট-৪, মৌলভীবাজার-১, মৌলভীবাজার-৩, মৌলভীবাজার-৪, হবিগঞ্জ-২, হবিগঞ্জ-৩, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬, কুমিল্লা-৩, কুমিল্লা-৮, কুমিল্লা-৯, কুমিল্লা-১০, কুমিল্লা-১১, চাঁদপুর-১, চাঁদপুর-২, ফেনী-১, ফেনী-২, নোয়াখালী-১, নোয়াখালী-৫, নোয়াখালী-৬, চট্টগ্রাম-৪, চট্টগ্রাম-৬, চট্টগ্রাম-৭, চট্টগ্রাম-৯, চট্টগ্রাম-১১, চট্টগ্রাম-১৩, চট্টগ্রাম-১৪, কক্সবাজার-২, কক্সবাজার-৩, কক্সবাজার-৪, খাগড়াছড়ি, রাঙামাটি ও বান্দরবান।

জানা যায়, টাঙ্গাইল-১ আসনে সাবেক বিএনপি নেতা ও সাবেক এমপি আনোয়ারুল ইসলাম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও জয়ের সম্ভাবনা বেশি আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক এমপির। টাঙ্গাইল-৬ আসনে এগিয়ে রয়েছেন বর্তমান এমপি আহসানুল ইসলাম টিটু। টাঙ্গাইল-৭ আসনে আসনে এগিয়ে রয়েছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী। 

দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী না থাকায় সহজ জয় পেতে যাচ্ছেন কিশোরগঞ্জ-৪ আসনে সাবেক রাষ্ট্রপতি অ্যাডভোকেট আবদুল হামিদের ছেলে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক এমপি, কিশোরগঞ্জ-৬ আসনে সাবেক রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের ছেলে নাজমুল হাসান পাপন এমপি এবং মানিকগঞ্জ-৩ আসনে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপন এমপির। মুন্সীগঞ্জ-২ আসনে বর্তমান এমপি সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি এগিয়ে।

ঢাকা-৩ আসনে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু এমপির জয়ের সম্ভাবনা রয়েছে। ঢাকা-৬ আসনে সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন বেশ এগিয়ে রয়েছেন। ঢাকা-৭ আসনের বর্তমান এমপি হাজী মোহাম্মদ সেলিমের ছেলে সোলায়মান সেলিম। ঢাকা-৮ আসনে দলের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, ঢাকা-৯ আসনে সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাবের হোসেন চৌধুরী এমপি, ঢাকা-১০ আসনে চিত্রনায়ক ফেরদৌস আহমেদ, ঢাকা-১১ আসনে ঢাকা মহানগর উত্তরের সহসভাপতি ওয়াকিল উদ্দিন, ঢাকা-১২ আসনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এমপি, ঢাকা-১৩ আসনে কেন্দ্রীয় সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, ঢাকা-১৫ আসনে শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার এমপির সহজ জয়ের সম্ভাবনা রয়েছে।

ঢাকা-১৬ আসনে এগিয়ে আছেন পল্লবী থানা শাখার সভাপতি ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাহ এমপি। ঢাকা-১৭ আসনেও এগিয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী আরাফাত এমপি। তাঁর বিরুদ্ধে দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী নেই। গাজীপুর-৪ আসনে সাবেক প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদের মেয়ে সিমিন হোসেন রিমি এমপি ভালো অবস্থানে রয়েছেন।

নরসিংদী-২ আসনে সহজ জয় পেতে পারেন ডা. আনোয়ারুল আশরাফ খান দিলীপ এমপি। নরসিংদী-৫ আসনে এগিয়ে দলের সভাপতিমণ্ডলীর সাবেক সদস্য রাজি উদ্দিন আহমেদ রাজু এমপি। নারায়ণগঞ্জ-২ আসনে ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বাবু ও নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে এ কে এম শামীম ওসমান এমপি এগিয়ে রয়েছেন। গোপালগঞ্জ-২ আসনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম। 

গোপালগঞ্জ-৩ আসনে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমপি অনেক এগিয়ে। মাদারীপুর-১ আসনে চিফ হুইপ নুর-ই-আলম চৌধুরী লিটন ও মাদারীপুর-২ আসনে দলের কেন্দ্রীয় সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শাজাহান খান এমপি। শরীয়তপুর-১ আসনে ইকবাল হোসেন অপু এমপি এবং শরীয়তপুর-৩ আসনে দলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে নাহিম রাজ্জাক এমপি।

জামালপুর-১ আসনে দলের বকশীগঞ্জ উপজেলা শাখার সাবেক সভাপতি নুর মোহাম্মদ, জামালপুর-৩ আসনে কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি এবং শেরপুর-২ আসনে সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সংসদ উপনেতা মতিয়া চৌধুরী এমপি জয়ের পথে। নেত্রকোনা-১ আসনে এগিয়ে রয়েছেন সাবেক এমপি মোশতাক আহমেদ রুহী। নেত্রকোনা-৪ আসনে এগিয়ে রয়েছেন সাবেক সচিব ও বর্তমান এমপি সাজ্জাদুল হাসান। নেত্রকোনা-৫ আসনে এগিয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন।

রেলপথমন্ত্রী অ্যাডভোকেট নূরুল ইসলাম সুজন এমপির বিরুদ্ধে পঞ্চগড়-২ আসনে দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী না থাকায় তিনি সহজেই জয় পাবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। ঠাকুরগাঁও-১ আসনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও বর্তমান এমপি রমেশ চন্দ্র সেন এগিয়ে। দিনাজপুর-২ আসনে নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। দিনাজপুর-৬ আসনের বর্তমান এমপি শিবলী সাদিক এগিয়ে।

নীলফামারী-১ আসনে আফতাব উদ্দিন সরকারের অবস্থান বেশ মজবুত। রংপুর-৪ আসনে নিরাপদ অবস্থানে আছেন বাণিজ্যমন্ত্রী ও বর্তমান এমপি টিপু মুনশি। রংপুর-৬ আসনে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। জয়পুরহাট-১ আসনে সামছুল আলম দুদু। জয়পুরহাট-২ আসনে দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন।

বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবর রহমান মজনু বগুড়া-৫ আসনে এগিয়ে। বগুড়া-৭ আসনে জেলা বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি ডা. মোস্তফা আলম নান্নু। আসাদুজ্জামান আসাদ রাজশাহী-৩ আসনে সহজ জয় পেতে পারেন। রাজশাহী-৪ আসনে তাহেরপুরের পৌর মেয়র অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ। নাটোর-২ আসনে শফিকুল ইসলাম শিমুল।  সিরাজগঞ্জ-১ আসনে কেন্দ্রীয় সভাপতিমণ্ডলীর সাবেক সদস্য মোহাম্মদ নাসিমের ছেলে তানভীর শাকিল। সিরাজগঞ্জ-২ আসনে দলের জেলা শাখার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জান্নাত আরা হেনরী। সিরাজগঞ্জ-৪ আসনে সহজ জয়ের সম্ভাবনা সাবেক এমপি শফিকুল ইসলামের। সাবেক এমপি চয়ন ইসলাম সিরাজগঞ্জ-৬ আসনে এগিয়ে।

পাবনা-২ আসনে আহমেদ ফিরোজ কবির। পাবনা-৪ আসনে গালিবুর রহমান শরীফের জয়ের সম্ভাবনা বেশি। পাবনা-৫ আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক খন্দকার প্রিন্স।

যশোর-২ আসনে দলের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য তোফায়েল আহমেদের জামাতা ডা. তৌহিদুজ্জামান তুহিন। যশোর-৪ আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী এনামুল হক বাবুল।

ক্রিকেট তারকা সাকিব আল হাসানের বিরুদ্ধে মাগুরা-১ আসনে অনেকটা এগিয়ে। মাগুরা-২ আসনে সাবেক প্রতিমন্ত্রী ড. বীরেন শিকদার এমপি। নড়াইল-১ আসনে বর্তমান এমপি বি এম কবিরুল হক মুক্তির বিজয় প্রায় নিশ্চিত। নড়াইল-২ আসনে ক্রিকেট তারকা ও বর্তমান এমপি মাশরাফী বিন মুর্তজা।

বাগেরহাট-১ আসনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চাচাতো ভাই ও বর্তমান এমপি শেখ হেলাল উদ্দীন এমপি। বাগেরহাট-২ আসনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পৌত্র ও বর্তমান এমপি শেখ সারহান নাসের তন্ময়। ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগও বাগেরহাট-৪ আসনে এগিয়ে।

সাবেক এমপি ননী গোপাল মণ্ডল খুলনা-১ আসনে এগিয়ে। খুলনা-২ আসনে বঙ্গবন্ধুর ভাই শেখ আবু নাসেরের ছেলে ও বর্তমান এমপি শেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল। দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন খুলনা-৩ আসনে এগিয়ে। খুলনা-৬ আসনে দলের উপজেলা শাখার সাবেক সহসভাপতি রশীদুজ্জামান এগিয়ে। সাতক্ষীরা-৩ আসনে বর্তমান এমপি অধ্যাপক ডা. আ ফ ম রুহুল হক এগিয়ে রয়েছেন।

বরগুনা-২ আসনে সংরক্ষিত নারী আসনের বর্তমান এমপি সুলতানা নাদিরা, পটুয়াখালী-২ আসনে আ স ম ফিরোজ এমপি, ভোলা-১ আসনে দলের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য তোফায়েল আহমেদ এমপি এবং ভোলা-২ আসনে বর্তমান এমপি আলী আজম মুকুলের জয়ের সম্ভাবনা বেশি। তাদের বিরুদ্ধে দলের স্বতন্ত্র প্রার্থীনেই। ভোলা-৩ আসনে নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন এমপি। ভোলা-৪ আসনে এগিয়ে আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব এমপি। বরিশাল-১ আসনে আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ এমপি। পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীম এমপি বরিশাল-৫ আসনে এগিয়ে। ঝালকাঠি-১ আসনে রয়েছেন বিএনপি ছেড়ে আওয়ামী লীগে আসা ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর বীরউত্তমের। ঝালকাঠি-২ আসনে দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী না থাকায় দলের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য আমির হোসেন আমু এমপি জয়ের পথে

রয়েছেন।

সুনামগঞ্জ-৩ আসনে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি। সুনামগঞ্জ-৫ আসনে বর্তমান এমপি মুহিবুর রহমান মানিক। সিলেট-১ আসনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন এমপি, সিলেট-৪ আসনে প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ এমপি, মৌলভীবাজার-১ আসনে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন এমপি, মৌলভীবাজার-৩ আসনে জিল্লুর রহমান এবং মৌলভীবাজার-৪ আসনে বর্তমান এমপি উপাধ্যক্ষ আব্দুস শহীদ। হবিগঞ্জ-২ আসনে এগিয়ে আছেন দলের জেলা শাখার আইনবিষয়ক সম্পাদক ময়েজ উদ্দিন শরীফ রুয়েল। হবিগঞ্জ-৩ আসনে এগিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আবু জাহির এমপি। 

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ আসনে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক এমপি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ আসনে সাবেক এমপি ফয়জুর রহমান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬ আসনে ক্যাপ্টেন (অব.) এ বি তাজুল ইসলাম এমপি এগিয়ে রয়েছেন। কুমিল্লা-৩ আসনে ইউসুফ আব্দুল্লাহ হারুন এমপি এগিয়ে। কুমিল্লা-৮ আসনে আবু জাফর মোহাম্মদ শফি উদ্দিন শামীম, কুমিল্লা-৯ আসনে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম এমপি ও কুমিল্লা-১০ আসনে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এমপি। কুমিল্লা-১১ আসনে মুজিবুল হক এমপি। চাঁদপুর-১ আসনে দলের কেন্দ্রীয় তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক ড. সেলিম মাহমুদ। চাঁদপুর-২ আসনে দলের কেন্দ্রীয় সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোফাজ্জল হোসাইন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম।

ফেনী-১ আসনে এগিয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সাবেক সদস্য আলাউদ্দিন আহম্মদ চৌধুরী নাসিম। ফেনী-২ আসনে এগিয়ে রয়েছেন বর্তমান এমপি নিজাম উদ্দিন হাজারী।

নোয়াখালী-১ আসনে এইচ এম ইব্রাহিম এমপি, নোয়াখালী-৫ আসনে দলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি এবং নোয়াখালী-৬ আসনে সাবেক এমপি মোহাম্মদ আলীর বিজয়ের সম্ভাবনা বেশি। চট্টগ্রাম-৪ আসনে এগিয়ে আছেন উত্তর জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি এস এম আল মামুন। চট্টগ্রাম-৬ আসনে এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি, চট্টগ্রাম-৭ আসনে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি এবং চট্টগ্রাম-৯ আসনে শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এমপি।

চট্টগ্রাম-১১ আসনে বর্তমান এমপি আবদুল লতিফ এগিয়ে। চট্টগ্রাম-১৩ আসনে এগিয়ে আছেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ এমপি। চট্টগ্রাম-১৪ আসনে নজরুল ইসলাম চৌধুরী এমপির জয়ের সম্ভাবনা বেশি। কক্সবাজার-২ আসনে এগিয়ে বর্তমান এমপি আশেক উল্লাহ রফিক। কক্সবাজার-৩ আসনে সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি। কক্সবাজার-৪ আসনে সাবেক এমপি আবদুর রহমান বদির স্ত্রী শাহীন আক্তার চৌধুরী এমপি। খাগড়াছড়িতে কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি, রাঙামাটিতে দীপংকর তালুকদার এমপি ও বান্দরবানে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়কমন্ত্রী বীর বাহাদুর উ শৈ সিং এমপির জয়ের সম্ভাবনা বেশি।

তথ্য ও সূত্র : বাংলা ইনসাইডার

%d